মাদক ব্যবসায়ীদের ছুরিকাঘাতে প্রাণ গেল অভির

 নিজস্ব প্রতিবেদক
আপডেট: ২০২০-০৬-২৪ , ১২:৩২ পিএম

মাদক ব্যবসায়ীদের ছুরিকাঘাতে প্রাণ গেল অভির ছবি: সিটিজেন নিউজ

চট্টগ্রাম নগরীর আগ্রাবাদে মাদক ব্যবসায়ীদের ছুরিকাঘাতে মারা গেলেন অভি মীর নামে এক যুবক। মঙ্গলবার (২৪ জুন) দিবাগত রাতে নগরীর মেট্রোপলিটন হাসপাতালে তার মৃত্যু হয়। এর আগে গত ১৫ জুন আগ্রাবাদের হাজীপাড়ায় মাদক ব্যবসায়ীরা অভিকে ছুরি মারে বলে অভিযোগ তার পরিবারের সদস্যদের।

এ ঘটনায় গত ১৮ জুন চট্টগ্রাম মেট্রোপলিটন পুলিশের (সিএমপি) ডবলমুরিং থানায় হত্যার উদ্দেশে মারধরের একটি মামলা দায়ের করেন অভি।

নিহতের স্ত্রী ফারিয়া সুলতানা অহনা সিটিজেন নিউজকে জানান, গত ১৫ জুন আমার বড় বোন অসুস্থ হলে তার জরুরি অক্সিজেনের প্রয়োজন হয়। পরে আমার স্বামী অভি অক্সিজেন ব্যবস্থা করে রাতে বাসায় ফেরার পথে স্থানীয় মাদক ব্যবসায়ী সন্ত্রাসী বাবু, টিটু ও তুহিন তিন ভাই মিলে তাকে রাস্তায় পেয়ে গালাগালি করতে থাকে। এ পর্যায়ে বাবু অভিকে ছুরি মারে।

অহনা বলেন, খবর পেয়ে আমরা অভিকে উদ্ধার করে হাসপাতালে নিয়ে যাই। চিকিৎসা শেষে কয়েকদিন বাসায় থাকলেও মঙ্গলবার রাতে তার অবস্থার অবনতি হলে চট্টগ্রাম মেট্রোপলিটন হাসপাতালে নিয়ে যাই। সেখানে রাত পৌনে ২টা দিকে আমার স্বামী অভি মারা যায়।

অহনা আরও বলেন, স্থানীয় সন্ত্রাসী বাবু, টিটু ও তুহিন মাদক ব্যবসা করতো। তাদের এ মাদক ব্যবসায় অভি এর আগে কয়েকবার প্রতিবাদ করলে তাকে মেরে ফেলার হুমকি দেয়।

নিহতের স্ত্রী অহনা ও তার পরিবারের সদস্যরা অভি হত্যাকারীদের শাস্তি দাবি করেন।

নিহত অভির বন্ধু রিয়াদ সিটিজেন নিউজকে বলেন, স্থানীয় মাদক ব্যবসায়ীদের বিরুদ্ধে অভি কয়েকবার প্রতিবাদ কর্মসূচিতে অংশগ্রহন করে এবং মাদক ব্যবসায় স্থানীয়দের সে বাঁধা দেওয়াই তার জন্য কাল হয়ে দাঁড়িয়েছে।

রিয়াদ বলেন, অভির এক আত্মীয় অসুস্থ হওয়ায় সেদিন অভির বাসায় ফিরতে রাত হলে স্থানীয় মাদক ব্যবসায়ী বাবু, টিটু ও তুহিন তিন ভাই মিলে অভিকে মারধরের এ পর্যায়ে বাবু অভিকে ছুরি মারে। এতে করে অভির বুকের ডান পাশে ছুরিবিদ্ধ হলে তাকে প্রথমে আগ্রাবাদ মা ও শিশু হাসপাতালে নিয়ে যাই। পরে অবস্থার অবনতি হলে তাকে চমেক হাসপাতালে নিয়ে আসি। সেখানে চিকিৎসা শেষে কয়েকদিন বাসায় থাকা অবস্থায় অভির গতরাতে (মঙ্গলবার) অবস্থার অবনতি হলে মেট্রোপলিটন হাসপাতালে নিয়ে গেলে রাতে মারা যায়।

এ বিষয়ে ডবলমুরিং থানার দায়িত্বপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) সুদীপ কুমার দাস সিটিজেন নিউজকে বলেন, ১৫ জুন রাতে অভি বাসায় ফেরার পথে স্থানীয় বাবু, টিটু ও তুহিনের সাথে তর্কাতর্কির এক পর্যায়ে বাবু অভিকে ছুরিকাঘাত করে। এ ঘটনায় গত ১৮ জুন অভি বাদি হয়ে থানায় একটি মামলা দায়ের করেন।

ওসি বলেন, যেহেতু ভিকটিম মারা গেছে সেহেতু লাশ পোস্টমর্টেম করা হবে এবং পরবর্তী আইনগত ব্যবস্থা গ্রহন করা হবে। আসামীদের ধরতে পুলিশের একটি টিম মাঠে অভিযান পরিচালনা করছে বলেও জানা ওসি সুদীপ কুমার দাস।